করোনায় মৃত বাবার দেহ নিতে অস্বীকার পরে ফোনও বন্ধ ছেলের, শেষকৃত্য করলেন মুসলিম যুবক

নতুন গতি নিউজ ডেস্ক : করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় বাবার। কিন্তু ছেলে কোনও আগ্রহ দেখাননি বাবার দেহ নেওয়ার ব্যাপারে। সটান জানিয়েও দেন তাঁর পক্ষে বাবার শেষকৃত্য সম্পন্ন করা সম্ভব নয়। কেননা পর্যাপ্ত লোকবল নেই। শেষ পর্যন্ত মৃত ব্যক্তির পারলৌকিক ক্রিয়া সম্পন্ন করল এক সংগঠন। আর সেই শেষকৃত্যের কাজে অংশ নিলেন এক মুসলিম যুবক। এমনই ঘটনার সাক্ষী থাকল বিহারের দ্বারভাঙা। এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের সূত্রে জানা যাচ্ছে, কেবল দেহ নিতে অস্বীকার করাই নয়, মৃত ব্যক্তির ছেলে পরে নিজের ফোনও বন্ধ করে দেন। ফলে আতান্তরে পড়তে হয় দ্বারভাঙার ডিএমসিএইচ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। তার আগে হাসপাতালে এসেছিলেন তিনি। সেখানে লিখিত আবেদনপত্র জমা করে তিনি দাবি করেন, তাঁর পর্যাপ্ত লোকবল নেই। ফলে তাঁর পক্ষে বাবার শেষকৃত্য করা সম্ভব নয়। এরপরই তিনি ফোন বন্ধ করে দেন। বেরিয়েও যান হাসপাতাল থেকে। জানা গিয়েছে, মৃত ব্যক্তির স্ত্রী এখনও জীবিত। কিন্তু তিনিও করোনায় আক্রান্ত। কেবল তিনিই নন, ওই পরিবারের সকলেই সংক্রমিত। তবে ছেলেটি করোনা আক্রান্ত নন। তবুও বাবার শেষকৃত্য করার বিষয়টি এড়িয়েই তিনি হাসপাতাল থেকে একরকম গায়েব হয়ে যান। শেষ পর্যন্ত বেগতিক দেখে কবীর সেবা প্রতিষ্ঠানে খবর দেওয়া হয়। তারাই শেষ পর্যন্ত দাহ করে বৃদ্ধের দেহ। মধ্যরাতে সম্পন্ন হয় শেষকৃত্য। কেবল মুসলিমরাই নন, প্রতিষ্ঠানের হিন্দু সদস্যরাও যোগ দেন তাতে।দেশে শুরু হয়েছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। ভয়াবহতার  সব মাত্রা যেন ছাড়িয়ে যাচ্ছে মারণ ভাইরাসের আক্রমণ। দেশে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা এক লক্ষের গণ্ডি পেরিয়েছিল সপ্তাহ দেড়েক আগেই। এবার দেশে প্রথমবার একদিনে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়াল দেড় লক্ষের গণ্ডি। লাফিয়ে বেড়েছে অ্যাকটিভ কেসও। দেশে করোনার উদ্বেগজনক পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আহ্বানে আজ থেকে টিকা উৎসব পালন করা হচ্ছে।