বেকারত্ব ও দাম বৃদ্ধি নিয়ে কেন্দ্রকে তোপ অমিত মিত্রের

নতুন গতি নিউজ ডেস্ক:ভারতে জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি ও বেকারত্ব বেড়ে যাওয়ার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের আর্থিক নীতির কড়া সমালোচনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী ও অর্থ দফতরের প্রধান উপদেষ্টা অমিত মিত্র। তাঁর আশঙ্কা ভারতের অর্থনীতি মুদ্রাস্ফীতি ও বেকারত্বের হার বাড়ার সঙ্গে এবার নিশ্চল হয়ে পড়তে পারে যাকে অর্থনীতিবিদরা ‘স্ট্যাগফ্লেশন’ বা ‘অর্থনৈতিক স্থবিরতা’ বলে অভিহিত করেন। একই সঙ্গে তিনি জানান, পশ্চিমবঙ্গ সরকার সঠিক আর্থিক নীতি গ্রহণ করার কারণে ২০২০-২১ কোভিড বছরেও রাজ্যের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ঘটেছে।

সোমবার দ্য ইনস্টিটিউট অফ কস্ট অ্যাকাউন্ট্যান্টস অফ ইন্ডিয়া আয়োজিত সিএফও লিডারশিপ সামিট ২.০-তে তিনি বলেন, ‘ভারতে এখন পাইকারি দর সূচক ভিত্তিক মুদ্রাস্ফীতির হার ১৪.২%। গত বছরের তুলনায় দেশে বেকারত্বের হার বেড়েছে ১০.৪৮%। যা পরিস্থিতি তাতে আগামী দিনে ভারতের অর্থনীতি স্ট্যাগফ্লেশনের দিকে বোধহয় এগোচ্ছে।’

ভারতীয় অর্থনীতির এই অবস্থার জন্য তিনি কেন্দ্রের ‘ত্রুটিপূর্ণ’ নীতিকেই দায়ী করেছেন।

তাঁর বক্তব্য, ‘ভারতে যে বেসরকারি লগ্নি হচ্ছে না, তা দু’দিন আগে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনও স্বীকার করে নিয়েছেন। কেন্দ্রীয় সরকার কর্পোরেট করের হার কমানোয় সংস্থাগুলির মুনাফা বেড়েছে। অথচ, কোভিড পরিস্থিতিতে বাজারে চাহিদা না থাকায় তারা লগ্নি করতে এগিয়ে আসছে না। কেন্দ্রের উচিত ছিল অর্থনীতিতে চাহিদা সৃষ্টির জন্য পদক্ষেপ করা, যা তারা করেনি।’

এখানেই তিনি টেনে এনেছেন পশ্চিমবঙ্গের উদাহরণ। তিনি বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গ সরকার মানুষের হাতে অর্থ দেওয়ায় কোভিড পরিস্থিতির মধ্যে বাজারে চাহিদা সৃষ্টি হয়েছে। অন্য দিকে, রাজ্যে স্ট্যাম্প ডিউটি ও সার্কেল রেটের হার যথাক্রমে ২% ও ১০% কমানোয় সম্পত্তি রেজিস্ট্রেশন বাড়ায় রিয়েল এস্টেট ক্ষেত্র চাঙ্গা হয়েছে।’