নিচু জাতের লোকজন বলায় যুবকের বিরুদ্ধে বন্দনা কাটারিয়ার পরিবারের এফআইআর দায়ের

নতুন গতি ওয়েব ডেস্ক: টোকিও অলিম্পিকে ইতিহাস তৈরি করে সেমিফাইনালে উঠেছে ভারতের মহিলা হকি দল। শেষ চারে আর্জেন্টিনার কাছে হারলেও মাথা উঁচু করে মাঠ ছেড়েছেন রানি রামপালরা। ব্রোঞ্জ জেতার আশা এখনও জিইয়ে। কিন্তু ভারতকে গর্বের সিংহাসনে বসানো মহিলা হকি দলের সদস্যকে শুনতে হল জাত নিয়ে কটূক্তি। এতেই প্রমাণ হয়, ভারত আছে ভারতেই!

ভারতীয় হকি তারকা বন্দনা কাটারিয়ার পরিবারের অভিযোগ, বুধবার আর্জেন্টিনার সঙ্গে ম্যাচ হারার পরই হরিদ্বারে তাঁদের বাড়ির সামনে একদল যুবক প্রচুর বাজি ফাটায়। তারপর তারস্বরে গান চালিয়ে নাচতে শুরু করে। এই ঘটনায় এফআইআর দায়ের করেন তাঁরা। মূল অভিযুক্ত বিজয় পালকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার তাকে রোশনাবাদ স্টেডিয়ামে হানা দিয়ে তাকে ধরে পুলিশ। বাকিদের খোঁজে তল্লাশি চলছে।

বন্দনার ভাই চন্দ্র সেখর দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে জানিয়েছেন, আমরা দেখলাম ৩-৪ জন যুবক বাজি ফাটিয়ে বাড়ির সামনে নাচানাচি করছে। তারা বলছিল, জাতীয় দল কী করে নিচু জাতের লোকজন সুযোগ পায়। আমাদের পরিবার আতঙ্কে রয়েছে, কারণ ছেলেগুলো হুমকি দিয়েছে আমাদের প্রাণে মেরে ফেলার। গোটা ঘটনায় অভিযোগ দায়ের করেছি।

জানা গিয়েছে, অভিযুক্তদের মধ্যে দুজন হকি খেলোয়াড়। অলিম্পিকের আসরে জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়া নিয়ে প্রতিহিংসার জেরে এই কাণ্ড করেছে যুবকরা। কিন্তু জাতীয় দলের হারে এমন উল্লাস অপ্রত্যাশিত। ওদের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার মামলা করা উচিত বলে দাবি বন্দনার ভাইয়ের।

হরিদ্বার পুলিশ জানিয়েছে, ভারতীয় দণ্ডবিধিক ৫০৪ ধারা এবং তফশিলি জাতি-উপজাতি আইনে মামলা দায়ের হয়েছে বিজয় পাল, অঙ্কুর পাল এবং সুমিত চৌহানের নামে। ইতিহাসে নাম লেখানো ভারতীয় মহিলা হকি দলের তারকাকে যদি জাত-গায়ের রং নিয়ে কটুক্তি শুনতে হয়, তাহলে অলিম্পিকের মতো আসরে ভারতের লজ্জায় নাক কাটা যাওয়ার সমান।