দেগঙ্গা পঞ্চায়েত সমিতির প্রাক্তন সভাপতির অকাল প্রয়াণে গভীর শোক প্রকাশ করেন বারাসাত সাংগঠনিক জেলা সভাপতি অশনি মুখার্জি

দেগঙ্গা পঞ্চায়েত সমিতির প্রাক্তন সভাপতির অকাল প্রয়াণে গভীর শোক প্রকাশ করেন বারাসাত সাংগঠনিক জেলা সভাপতি অশনি মুখার্জি

বিশেষ প্রতিবেদক, দেগঙ্গা: সোমবার সকালে দেগঙ্গার নিজ বাসভবনে আত্মঘাতী হন ২০০৮ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি তথা বর্তমান পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যা এবং তৃণমূল কংগ্রেসের লড়াকু নেত্রী পম্পা দত্ত।
নেত্রীর মৃত্যু সংবাদ শুনে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ে স্থানীয় নেতৃত্ব সহ জেলা নেতৃত্ব। বারাসাত সাংগঠনিক জেলা সভাপতি অশনি মুখার্জি অত্যন্ত আক্ষেপের সুরে বলেন পম্পা একজন লড়াকু নেত্রী। বিগত দিনে অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে প্রশাসনিক দিক সামলেছে তার অকাল প্রয়াণ আমাদের পার্টির পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকর বলে তিনি জানান। স্থানীয় বিধায়ক রহিমা মন্ডল বলেন আমার ছোট বোনের মত ছিল পম্পা। তার এইভাবে মৃত্যুবরণ করা আমরা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছি না। তাঁর অভাব অপূরণীয়। মহান ঈশ্বরের কাছে তাঁর আত্মার চিরশান্তি কামনা করেন বিধায়ক। জেলা পরিষদের বন ও ভূমি স্থায়ী সমিতির কর্মাধ্যক্ষ তথা বিশিষ্ট শিক্ষক নেতা একেএম ফারহাদ বলেন , লড়াকু নেত্রী হিসেবে পরিচিত পম্পা সকলের সঙ্গে হাসিখুশি মনে যে ভাবে কথা বলত। সত্যিই আমাদের ছেড়ে চলে যাওয়াকে বিশ্বাস করতে পারছি না। আমরা পরম করুণাময় ঈশ্বরের কাছে তাঁর আত্মার চিরশান্তি কামনা করি এবং তার অভাব দলের পক্ষে অপূরণীয় ক্ষতি বলে কর্মাধ্যক্ষ জানায়। বর্তমান পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মফিদুল হক সাহাজি বলেন প্রশাসনিক কিংবা সাংগঠনিক যেকোনো কাজে পম্পা অগ্রণী ভূমিকা পালন করত। এইভাবে তার ছেড়ে চলে যাওয়া আমাদের কাছে বিস্ময়কর। তার ফেলে রাখা কাজ আমরা সবাই শেষ করবো বলে সভাপতি জানান।