বন্যা ত্রাণে কোটি টাকার দুর্নীতি নিয়ে রাজ্যকে ভৎসর্না হাইকোর্টের

নতুন গতি নিউজ ডেস্ক: বন্যার ত্রাণে কোটি কোটি টাকার দুর্নীতি নিয়ে রাজ্যের ভূমিকার সমালোচনা করল কলকাতা হাই কোর্ট। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যের জন্য সক্রিয় ভূমিকায় দেখা যায়নি রাজ্যকে, দুর্নীতির বিরুদ্ধেও কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি। ওই বিষয়গুলি তুলে ধরে রাজ্য সরকারের সমালোচনা করল আদালত। এদিন কড়া সমালোচনা করে আদালত বলে, ‘শো-কজ করা বা দুর্নীতির টাকা উদ্ধারের মধ্যেই রাজ্যের কাজ শেষ হয়ে যায় না। ত্রাণের টাকা ক্ষতিগ্রস্থ মানুষদের জন্য। কয়েক জনের পকেটে ভরানোর জন্য নয়’।

রাজ্যের এজি কিশোর দত্ত স্বীকার করে নেন, এখানে দুর্নীতি হয়েছে। গ্রেফতারও করা হয়েছে অভিযুক্তদের। এদিন ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দাল জানতে চান, কোনও পদক্ষেপ নিয়েছেন কি যাতে ক্ষতিগ্রস্তদের ব্যাঙ্কে টাকা পৌছায়? তিনি আরও বলেন, “এটা স্পষ্ট যে দুর্নীতি হয়েছে। তারপরেও দুবছর চুপ করে বসেছিলেন? একটা গুরুতর বিষয়। এতদিন ঘুমোচ্ছিলেন?” ২০১৯-এই জেলাশাসক জানিয়েছিলেন দুর্নীতি হয়েছে। তারপরেও কেন কোনও পদক্ষেপ করলেন না ?” – প্রশ্ন ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির।

এদিন অ্যাডভোকেট জেনারেলকে হাইকোর্টের প্রশ্ন ছিল, “গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধানের বিরুদ্ধে FIR দায়ের হয়েছে? ফৌজদারি কার্যবিধির ৪১ ধারা প্রয়োগ করে প্রধানকে ডাকা হয়েছে ? এতদিন সময় গেলেও কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি! এতদিন কি ঘুমোচ্ছিলেন?” অ্যাডভোকেট জেনারালের উত্তর ছিল, প্রধান কে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে। টাকা উদ্ধার করা হচ্ছে। রাজ্যের এহেন অবস্থান জেনে, ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ তুমুল ভৎসর্না করেন। আগামী ৮ সেপ্টেম্বরের মধ্যে রাজ্যকে তদন্তের অগ্রগতির পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।