সজল ঘোষকে যেভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাঁর তীব্র নিন্দা করেছেন দিলীপ ঘোষ

নতুন গতি নিউজ ডেস্ক: সজল ঘোষের গ্রেপ্তারিকে কেন্দ্র করে শুক্রবার দুপুর থেকে উত্তাল মুচিপাড়া। থানার বাইরে দফায় দফায় বিক্ষোভ দেখিয়েছেন তৃণমূল ও বিজেপি কর্মীরা। অকারণে তাঁকে ফাঁসানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন সজল ঘোষ। এ বিষয়ে মুখ খুললেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ ও মেদিনীপুরের বিজেপি সাংসদ দিলীপ ঘোষ।

বিজেপি নেতা সজল ঘোষকে যেভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাঁর তীব্র নিন্দা করেছেন রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, “যে কোনও একটা ইস্যু নিয়ে বিজেপির লোকজনকে কেস দেওয়া, ভয় দেখানো হচ্ছে। ক্লাবে কে কাকে ইভটিজিং করেছে তার জন্য একজন নেতার বাড়ির দরজা ভেঙ্গে অ্যারেস্ট করা হল। উনি কি ক্রিমিনাল নাকি? এরাই আবার দিল্লি যাচ্ছে, ত্রিপুরা যাচ্ছে। ত্রিপুরার বদলা নিচ্ছে নাকি এখানে! আমাদের কর্মীরা গিয়ে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন। আমরা সাড়ে তিন হাজার কেস লড়ছি। সজল ঘোষের পাশেও আছি, থাকব।”

দরজা ভেঙে গ্রেপ্তারির ঘটনার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। তিনি বলেন, “কাল রাতে একটা বাজে ঘটনা ঘটেছে। তৃণমূলের এক মহিলাকে অসম্মান করা হয়েছে। নির্যাতিতা যখন থানায় যাচ্ছেন তখন সজলের সেখানে যাওয়া উচিত হয়নি। এটা অনেক দায়িত্বের সঙ্গে সামলানো উচিৎ ছিল। তবে দরজা ভাঙার প্রয়োজন ছিল কি না তা বিবেচনা সাপেক্ষ।” স্বামীকে মিথ্যে অভিযোগে ফাঁসানো হচ্ছে বলে এদিন দাবি করেছেন সজল ঘোষের স্ত্রী। উল্লেখ্য, বৃ্হস্পতিবার রাতে এক তরুণীর শ্লীলতাহানির অভিযোগকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়ায় মুচিপাড়া থানা এলাকায়। অভিযোগ ওঠে দুই বিজেপি কর্মীর নামে। অভিযোগ দায়ের হয়। এর প্রতিবাদে মুচিপাড়া থানায় যান সজল ঘোষ ও তার দলবল। শুক্রবার এলাকার একটি ক্লাবে ভাঙচুর চালানো হয়। এরপরই সজল ঘোষের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়। তাঁর গ্রেপ্তারিকে কেন্দ্র করেই তীব্র চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়।