লকডাউন এর মধ্যে আপনার গৃহপালিত প্রাণীদের কিভাবে পরিচর্যা করবেন জানালেন প্রাণী চিকিৎসক রামিজ মন্ডল

লকডাউন এর মধ্যে আপনার গৃহপালিত প্রাণীদের কিভাবে পরিচর্যা করবেন জানালেন প্রাণী চিকিৎসক রামিজ মন্ডল

নতুন গতি ওয়েব ডেস্ক:

লিখেছেন: ডাঃ রামিজ মন্ডল (MVSc, প্রাণিচিকিৎসক ও প্রাণী বিশেষজ্ঞ):সারা পৃথিবী যখন ঘরে বসে করোনা- বক্ররেখা এর সাথে যুদ্ধ করে যাচ্ছে, আমাদের পোষ্যরাও পরিস্থিতির শিকার, কারণ তারা লকডাউনের সময় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে আমাদের অজান্তে I ভিতরে লক থাকা কারও পক্ষে সহজ নয়, বিশেষত আমাদের চতুষ্পদ বন্ধুদের।
অনেক পোষ্য প্রাণীর পিতামাতারা অভিযোগ করছেন তাদের পোষ্যরা খুদা হারাচ্ছে এবং অলসতা বাড়ছে । দীর্ঘ সময় ধরে কোনও সক্রিয় চলাফেরা না করতে পারায়, শুধুই যে শারীরিক স্বাস্থ্যই ঝুঁকিতে পড়তে পারে এমন নয়, যেহেতু শারীরিক ক্রিয়াকলাপের অভাব তাদের বিপাককে প্রভাবিত করবে, যা ক্ষুধা হ্রাস এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল করতে পারে।
অতএব, আপনার #ফুরফুরে #ছোট্ট #বন্ধুদের অতিরিক্ত #যত্ন নেওয়া খুব #গুরুত্বপূর্ণ ।
আর একটা কথা, আমি আপনাকে এই লকডাউনের সময় পোষ্যকে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিতে পারলাম না । আমি দুঃখিত I কারণ বিশেষজ্ঞদের মতে, দীর্ঘ সময় ধরে বাড়িতে থাকা কুকুর / বিড়াল হতাশা এবং উদ্বেগের শিকার হতে পারে এবং এটি অনিবার্যভাবে তাদের শারীরিক স্বাস্থ্যের সাথে মানসিক স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব ফেলবে। সেইজন্য, আপনি ওদেরকে বাইরে বেড়াতে নিয়ে যেতে পারছেন না, সুতরাং চলুন আমরা #সন্ধান করার চেষ্টা করি কিছু #অভিনব উপায় যেগুলো ওদেরকে #শারীরিক এবং #মানসিকভাবে #সক্রিয় রাখতে সাহায্য করবে।

#লুকোচুরি:
এমন একটি খেলা যা কুকুরকে ব্যস্ত রাখতে পারে I সুতরাং ওদের সাথে সময় কাটাতে এবং এই জাতীয় গেমগুলিতে ১-২ ঘন্টা বরাদ্দ রাখুন। এছাড়াও, ঘরে যদি সিঁড়ি থাকে তবে এটির সদ্ব্যবহার করুন। সিঁড়ি আরোহণ বাবা-মা এবং পোষা প্রাণী উভয়ের জন্যই ভাল অনুশীলন হতে পারে।
#ভাল স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখুন:
পরিস্কার পরিছন্ন থাকা এবং রাখা দুটোই খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় একটি সুন্দর পৃথিবীর জন্যে I অনেকক্ষেত্রে, বিশেষত যারা অ্যাপার্টমেন্টে থাকেন তাদের খুব সীমিত বিকল্প রয়েছে I লিটার ব্যাগগুলি ব্যবহার করুন এবং স্বাস্থ্যকরভাবে নিষ্পত্তি করুন। লকডাউনের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ লিটার ব্যাগ তৈরি করুন। এছাড়াও, যদি আপনি নিজেকে এবং নিজের পোষ্যকে মুক্তি দিতে বাইরে নিয়ে চলে যান, মানে বলতে চাইছি বাড়ির বাইরে অথবা ছাদে, তবে এমন সময়ে যান, যখন অন্য কোনও লোকের মুখোমুখি হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকবে এবং নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে সাবধানে ফিরে এসে উপযুক্ত স্বাস্থবিধি মানতে পারবেন I
#জরুরী কিট সঙ্গে রাখুন:
কখন ইমার্জেন্সি সন্ধিক্ষণ এসে উপস্থিত হবে, আপনি কখনই জানতে পারবেন না। পরবর্তী 30 দিনের খাবারের পাশাপাশি, জরুরী কিটে নিম্নলিখিত আইটেম রয়েছে তা নিশ্চিত করুন – ব্যান্ডেজ, কাঁচি, থার্মোমিটার, সুতো , খাওনোর ওষুধ দেওয়ার জন্য নিডল ছাড়াই একটি সিরিঞ্জ (২মিলি অথবা ৫মিলি), জ্বর কমানোর জন্য সমস্ত ওষুধ, বমি বন্ধ করা এবং এলার্জি রিঅ্যাকশন কমানোর ইত্যাদি। এছাড়াও কৃমির ওষুধগুলি হাতে রাখুন কারণ আপনি কখনই জানেন না যে লকডাউনটি আরও বাড়ানো হতে পারে কিনা I নিয়মিত ফোনে আপনার প্রাণিচিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ রাখুন এবং যখনই আপনি কোনও অসুস্থতা লক্ষ্য করবেন ভেটের সাথে যোগাযোগ করে নেবেন I
“”সঠিক পরামর্শ এবং সঠিক ব্যক্তির কাছে থেকে সংগ্রহ করে প্রয়োগ করা খুব গুরুত্বপূর্ণ “”
#রেশন খাবার:
আপৎকালীন সময়ের জন্য আপৎকালীন পদক্ষেপ প্রয়োজন । সুতরাং, আপনার স্টক এর উপর কড়া নজর রাখা গুরুত্বপূর্ণ যেহেতু আপনি প্রায় সর্বদা আপনার পোষা প্রাণীর সাথে থাকবেন, তাই কেবল তাকে ভালো রাখার জন্য অতিরিক্ত খাবার দিয়ে প্রলোভন দেখাবেন না, কারণ ওরা ইতিমধ্যে শারীরিক ক্রিয়াকলাপ ছাড়াই রয়েছে I সুতরাং এটি থেকে বিরত থাকুন এবং লকডাউন শেষ হওয়ার আগেই খাবার এই ভাবে শেষ হতে দেওয়া বুদ্ধিমানের কাজ হবে না I
#খাবার শেষ হচ্ছে?
ভাগ্যক্রমে, অনেক সময়সীমাবদ্ধতা সহ কয়েকটি শাখা খোলা থাকছে, তবে এই সব স্টোরগুলি হোম ডেলিভারি পরিষেবা চালু করতে পারেনি , তাই আউটলেটগুলিতে যেতে হবে I লকডাউনের কারণে রাস্তায় যানবাহন চলাচলে বিধিনিষেধের কারণে এটি একটি চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।
******কুকুর এবং বিড়ালের জন্য #ঘরে #রান্না করুন । “দই -ভাত , সিদ্ধ শাকসবজি, সেদ্ধ চিকেন অথবা সেদ্ধ মাছ, সেদ্ধ চিকেন ভাত কিছু সবজি দিয়ে এবং মনে রাখা দরকার মশলা বলতে হলুদ গুঁড়ো, নুন একদম ব্যবহার করবেন না I এগুলো সব সুপ টাইপ প্রিপারেশন হওয়া বাঞ্চনীয় I তবে পোষা প্রাণীদের খাওয়ানোর আগে চিকেন/মাছ পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে রান্না করা জরুরি I অন্যদিকে যারা কোনোদিন প্যাকেট খাবারে পুরোপুরি স্যুইচ করেননি, তাদের কাছে আমার বলার আপনারা ঘরের রান্না এবং প্যাকেট খাবার দুটোই সামঞ্জস্য রেখে খেতে দিন, এতে ওরা বেশি সুস্থ থাকবে I মানসিক উত্তেজনার সবচেয়ে সহজ বিকল্পগুলির মধ্যে একটি হল স্ক্যাটার ফিডিং। খাবার পরিষ্কার জায়গায় ছড়িয়ে দিন, আমি শুকনো খাবারের কথা বলছি I অথবা আরও এক ধাপ এগিয়ে যান এবং আপনার কুকুরটিকে কিছু বেসিক কাজ শিখিয়ে দিন – খাবারটি আড়াল করুন এবং এটিকে শুকিয়ে দিন I প্লাষ্টিক খেলনাগুলো আপনার কুকুরটিকে চাটতে এবং চিবোতে দেবেন না I আপনার যত্ন সহকারে খাবারের পরিবর্তন করা এবং অতিরিক্ত খাওয়ানো এড়ানো উচিত – সর্বদা খাবারটি ওদের জন্যে নিরাপদ কিনা তা নিশ্চিত করুন I এই চরম দুর্দিনে সব ধরণের #নন-কনভেনশনাল খাবার থেকে বিরত রাখুন ওদেরকে, কারণ এখন কোনো শারীরিক সমস্যা হলে কিন্তু বাইরে বেরোতে হবে, তাই যে কোনো ধরণের

#এক্সপেরিমেন্টাল-ফিডিং থেকে শতহস্ত দূরে রাখুন আপনার প্রিয় বাচ্চাগুলো কে ******
আমরা অনেকেই বেশ কিছু সপ্তাহ ধরে নতুন রুটিনগুলিতে সামঞ্জস্য বজায় রেখে চলেছি । “ওয়ার্ক ফ্রম হোম” এর অনেক ইতিবাচক দিক থাকলেও, তবে এরও চ্যালেঞ্জ রয়েছে I ঠিক আমাদের মতো প্রতিনিয়ত সহকর্মীদের সাথে যোগাযোগ করা এবং বাচ্চাদের বিনোদন দিয়েও আমাদের এই পরিবর্তনটি কঠিন বলে মনে হচ্ছে প্রতিনিয়ত I তাই মাঝেমধ্যে কিছু অস্বাভাবিক আচরণও প্রদর্শন করে – বিশেষত সহজেই অবসাদগ্রস্ত হয়ে পরে । তবে সুসংবাদটি হ’ল আমরা লকডাউন লাইফের সাথে সামঞ্জস্য করার সময় এমন কিছু জিনিস রয়েছে যা আমাদের কুকুরকে আরও স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করতে সহায়তা করে।

#তাদের একটি নিরাপদ স্থান দিন:
প্রথমত, সমস্ত প্রাণীর কিছুটা শান্ত সময় প্রয়োজন উপভোগ করার জন্য এবং ঘরে একটি নিরাপদ স্থান থাকা উচিত । এটি অতিরিক্ত বেডরুম, বাথরুম বা ইউটিলিটি রুম (খেয়াল রাখতে হবে যেন এটি খুব গরম বা ঠান্ডা না হয় ) বা কোণে বা একটি ডেস্কের নীচে কেবল একটি বিছানা হতে পারে। অনেক কুকুরের জন্য ক্রেটও একটি দুর্দান্ত বিকল্প । এখানে একটি বিছানা, কিছু পছন্দসই খেলনা এবং সম্ভবত দীর্ঘস্থায়ী চিবানো যাই এমন বা কিছু বিস্কুটস ট্রিট হিসেবে রাখুন।
#তারা পর্যাপ্ত ঘুম পেয়েছে তা নিশ্চিত করুন:
প্রাপ্তবয়স্ক কুকুরের জন্য প্রতিদিন গড়ে 10 থেকে 14 ঘন্টা দৈনিক ঘুম হয় এবং কুকুরছানাগুলির ক্ষেত্রে আরও বেশি ঘুম দরকার হয় । বেশিরভাগ কুকুর তাদের পরিবার কর্মস্থলে এবং স্কুলে থাকাকালীন দিনে ঘুমায়, তাই লকডাউনের সময় নিয়মিত আমাদের চারপাশে থাকার অর্থ অনেক কুকুর তাদের প্রয়োজনীয় বিশ্রাম পাচ্ছে না। একটি শান্ত জায়গা যেখানে তারা ভিডিও কনফারেন্স বা শিশুদের দ্বারা বিরক্ত হবে না ।

#বাস্তববাদী হতে হবে:
তবে নমনীয় হওয়াও জরুরী – লকডাউনে জীবনে পরিবর্তন আমাদের সকলের পক্ষে শক্ত, তাই যদি আপনার কুকুর তার প্রশিক্ষণে ফিরে আসে, বা নতুন অনাকাঙ্ক্ষিত আচরণ প্রদর্শন করে, তবে ধৈর্য ধরুন এবং সামঞ্জস্য করার জন্য প্রস্তুত থাকুন I
বিড়াল লিটারের অভাবের ক্ষেত্রে, বালি এবং সংবাদপত্রগুলি এমন কিছু বিকল্প যা অনেক পোষা প্রাণী মালিকরা অতীতেও ব্যবহার করেছেন I
যখন খবর প্রকাশিত হয়েছিল যে কোনও ব্যক্তি প্রাণী থেকে ভাইরাস সংক্রমণ করতে পারে, তখন কেউ কেউ রাস্তায় পোষা প্রাণী ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে পোষা প্রাণী কোরোনাভাইরাস মানুষের মধ্যে সংক্রমণ করে তা বলার কোনও প্রমাণ নেই। “এই ধরনের গুজব পোষা প্রাণীর মালিকদের জন্য চ্যালেঞ্জগুলিকে আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে, যারা পোষা প্রাণীকে অপছন্দ করে এমন লোকদের দ্বারা সতর্কতা বা হয়রানির মুখোমুখি হতে পারে”

#নিখরচায় প্রশিক্ষক:
সর্বোপরি, আপনার কুকুরের সাথে এই সময়টি উপভোগ করুন। যদিও বিশ্বটি আজ একদম অচেনা, তবে এটা জেনে রাখুন যে, ওরা দুর্দান্ত কাজ করছে আমাদের আনন্দ দিতে I ওরা আমাদের হৃদয়ে একটি বিশেষ জায়গা দখল করে থাকে এবং তারা প্রায়শই জানে আমাদের মানসিক অবস্থা । অনেকসময় আমরা দেখতে পাই , আমাদের মন খারাপ শুরু হলে যখন গভীর চিন্তায় সোফায় বসে থাকি , তখন ওরা খেলনা দড়ি বা বল খেলতে নিয়ে আসে বা হাঁটতে যাওয়ার জন্য নিচে নামায় – তাদের অনেক উপায় রয়েছে যা দিয়ে তারা চেষ্টা করে আমাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার I
অন্যদিকে পোষা প্রাণীর সাথে অন্যসমস্ত প্রাণীর সাথে অর্থপূর্ণ সংবেদনশীল বন্ধন রয়েছে এবং তাদের জন্য তাদের দায়বদ্ধ হওয়া দরকার। দয়া করে স্যানিটাইজিং এড়িয়ে যাবেন না। জীবাণুনাশক দিয়ে তাদের পাগুলি মুছুন এবং প্রতিবার যখন তারা প্রকৃতির ডাকে উত্তর দিয়ে ফিরে আসে তখনও তাদের পশম ভালভাবে ব্রাশ করুন।

#ওরা খুব বেশি দাবি করে না:
কেবল আপনার সময়। এবং লকডাউন তাদেরকে আপনার অবিভক্ত মনোযোগ দেওয়ার দুর্দান্ত সুযোগ। বাইরে থেকে আপনার বাড়িতে এলে তার পাঞ্জাটি গরম জল এবং সাবান বা স্যানিটাইজার দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। আপনার কুকুরটিকে নিয়মিত (অর্থাৎ গরমকালে সপ্তাহে একবার /শীতকালে দুসপ্তাহে একবার অল্প-উষ্ণ জল দিয়ে স্নান দিন উপযুক্ত এনিম্যাল শ্যাম্পু দিয়ে ) এবং এর নখগুলি অস্বাভাবিক বৃদ্ধি বা ময়লার জন্য পরীক্ষা করুন। পরে নিজেকে ধুয়ে ফেলতে ভুলবেন না।
যাইহোক, একটি কুকুরের জন্য, যেকোনো দীর্ঘ ক্রিয়াকলাপ এর পর প্রায়শই জয়েন্টগুলিতে ব্যথা হতে পারে। এই স্ট্রেন উপশম করার জন্য #হাইড্রোথেরাপি পরবর্তী সেরা সমাধান হতে পারে।
হাইড্রোথেরাপি হ’ল একধরণের চিকিত্সা যা জলকে থেরাপিউটিক এজেন্ট হিসেবে ব্যবহার করে। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, “সাতারকাটা দৌড়ানোর চেয়ে বেশি উপকারী হতে পারে, জল একটি নারিশিং প্রভাব আছে ” অর্থোপেডিক এবং মেরুদণ্ডের শল্যচিকিত্সার পরে স্থূল কুকুরের ওজন হ্রাস করতে সহায়তা করে। “এটি প্রাণীদের উপর শ্বাস প্রশ্বাসের চাপ থেকে মুক্তি দেয়, তাদের শ্বাস প্রশ্বাসের উন্নতি করতে সহায়তা করে এবং তাদের আরও কঠোর করে তোলে।”সামগ্রিকভাবে, হাইড্রোথেরাপি একটি চাপমুক্ত অভিজ্ঞতা। আপনি যেমন কোথাও সাঁতার কাটতে গিয়েছেন এবং নিজেকে নতুনভাবে অনুভব করতে পেরেছেন বলে মনে করেন, ঠিক প্রাণীও একইরকম অনুভব করে।

#প্যাকেট ফুড শেষ, ভ্যাকসিনেশন এবং রুটিন চেকআপ পেন্ডিং: এমতাবস্থায় পোষা প্রাণীর মালিকরা কী করতে পারেন ?
বিড়াল/কুকুর যদি বাড়ির অভ্যন্তরে থাকে এবং অন্যান্য প্রাণীর বা কভিআইডি -19 রোগীদের সংস্পর্শে না আসে তবে টিকা স্থগিত করা যেতে পারে । কুকুরগুলিকে যদি টিকা দেওয়া ও জীবাণুনাশিত করা হয় তবে তাদের বাইরে বেড়াতে নিয়ে যাওয়া যায়। তারা যদি অন্য কুকুরের মুখোমুখি হয় বা টিকা দেওয়ার আগে স্ট্রাই করে তবে বাইরে হাঁটা এড়ানো উচিত। খুব ইমার্জেন্সি না হলে কোনো হাসপাতাল বা ক্লিনিক এ যাবেন না I

আমি যখনই লিখতে বসি, আমার সব পোষ্য পিতামাতাদের সাথে এক অদ্ভুত আত্মিক সম্পর্ক তৈরী হয়ে যাই, একটা অদৃশ্য নেক্সাস যেটা আমাকে আরো কাছাকাছি এনে দেয় আপনাদের
ভালো থাকবেন , সাথে থাকবেন I এই তথ্যগুলো দায়িত্ববান মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে এবং তাদের জীবনশৈলী কিছুটা সহজ করতে এগিয়ে আসুন I