প্রজাতন্ত্র দিবসের প্রাক্কালে কড়া নজরদারি বর্ধমান ও মেমারী ষ্টেশনে স্নিফার ডগ ও মেটাল ডিটেক্টর নিয়ে চলছে তল্লাশি।

নূর আহমেদ : ২৬জানুয়ারি প্রজাতন্ত্র দিবসের প্রাক্কালে কোনরকম অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে শুরু হলো তল্লাশি অভিযান। বুধবার সকালে বর্ধমান স্টেশন চত্ত্বরে স্নিপার ডগ ও মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে চেকিং চালায় জি আর পি ও আরপিএফ। স্টেশন চত্ত্বর ও বাইরে সাইকেল স্ট্যান্ড, টিকিট কাউন্টার,  টোটো স্ট্যান্ড সহ স্টেশনে আসা যাত্রীদের লাগেজ তল্লাশি করা হয়। তল্লাশি চালানো হয় একাধিক ট্রেনেও। তল্লাশি চলে স্টেশন চত্ত্বরে আসা বিভিন্ন গাড়িতে।

প্রজাতন্ত্র দিবসের আগে কোনো রকম নাশকতা এড়াতে জোর নজরদারি রেল পুলিশের। স্টেশন চত্ত্বরে মোতায়েন প্রচুর রেলপুলিশ। এদিন বর্ধমান স্টেশনে উপস্থিত ছিলেন ডি ওয়াই এস আর পি- উজ্জ্বল দাস। সাংবাদিক দের মুখোমুখি হয়ে তিনি জানান,  বর্ধমান একটি গুরুত্বপূর্ণ  স্টেশন। এখানে প্রচুর মানুষ যাতায়াত করেন প্রতিদিন। সারাবছরই আমরা তল্লাশি চালায়। তবে আগামীকাল প্রজাতন্ত্র দিবস।  তাই বাড়তি সতর্কতা নেওয়া হয়েছে।

এরপর বুধবার বিকেলে বর্ধমান জি.আর.পি. শক্তিগড় আর.পি.এফ পোস্ট ও মেমারী থানা পুলিশের এর তরফে মেমারী স্টেশন‌ ও স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় দফায় দফায় তল্লাশি অভিযান চালানো হয়। পরিক্ষা করে দেখা হয় রেল ট্রাক, রেল স্টেশন ও রেল স্টেশন সংলগ্ন এলাকা। বুধবার সন্ধ্যায় হাওড়া-বর্ধমান মেন লাইন শাখার মেমারি, এবং স্টেশনে স্নিফার ডগ ও মেটাল ডিটেক্টর নিয়ে তল্লাশি চালানো হয়। চলন্ত ট্রেন ও স্টেশনে থাকা যাত্রীদের সন্দেহজনক ব্যাগ মেটাল ডিটেক্টর নিয়ে তল্লাশি করে দেখা হয়।

বুধবার এই তল্লাশি অভিযানে বর্ধমান স্টেশনে উজ্জ্বল বাবু ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বর্ধমান জি আর পি ওসি চিন্তাহরণ সিনহা। মেমারী স্টেশনে উপস্থিত ছিলেন শক্তিগড় আর পি এফ ওসি বিজয় কুমার, মেমারী থানার এসআই পার্থ প্রতিম মন্ডল সহ জি আর পি, আর পি এফ ও পুলিশ আধিকারিক ও কর্মীরা।