সাগরদিঘিতে দুয়ারে সরকার শিবির পরিদর্শনে মন্ত্রী সুব্রত সাহা

রবিউল ইসলাম, সাগরদিঘি : বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃতীয়বার ক্ষমতায় আসার পরে জনহিতকর প্রকল্পের সমন্বয়ে শুরু হয়েছে দুয়ারে সরকার শিবির। পাশাপাশি চলছে পাড়ায় পাড়ায় সমাধান। গত ১৬ অগাস্ট থেকে চলছে এই শিবির। দুয়ারে সরকার শিবির ক্যাম্পে পরিদর্শনে আসেন রাজ্যের মন্ত্রী সুব্রত সাহা। মন্ত্রীকে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে আবেদন পত্র পূরণ করে দিতে দেখা গেল শনিবার মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘি ব্লকের বাড়ালা অঞ্চলে দুয়ারে সরকার শিবিরে। স্বয়ং মন্ত্রীর হাতে ফর্ম পূরণ পেয়ে খুশি সাধারণ মানুষজন। সরকারি প্রকল্পের সুবিধা পেতে সাতসকালেই শিবিরে হাজির সাধারণ মানুষেরা। খাদ্যসাথী, স্বাস্থ্যসাথী,শিক্ষাশ্রী,লক্ষ্মীর ভাণ্ডার,কন্যাশ্রী,রূপশ্রী, ঐক্যশ্রী,স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড, জাতিগত শংসাপত্র,তফসিলি বন্ধু,জয় জোহার,কৃষকবন্ধু এবং ১০০ দিনের কাজ সহ মোট ১৮ টি প্রকল্পের সুবিধাই মিলবে ‘দুয়ারে সরকার’ কর্মসূচির ক্যাম্পগুলি থেকে। গত বছর দুয়ারে সরকার শিবিরে মানুষের চাহিদা ছিল স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের, ঠিক তেমনি এই বছর নতুন সংযোজন ২৫ থেকে ৬০ বছর পর্যন্ত পরিবারের মহিলারা লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পের আওতায় আসতে ব্যাপক হারে সাড়া মেলেছে।পাশাপাশি সুবিধা মিলছে সরকারি অন্যান্য প্রকল্পগুলিও। এদিন মন্ত্রীর সাথে দুয়ারে সরকার শিবিরে উপস্থিত ছিলেন সাগরদিঘি ব্লক যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি কিসমত আলি,ব্লক তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সভাপতি সাব্বির আলি ও অন্যান্যরা। এদিন মন্ত্রী সুব্রত সাহা বলেন,ভোটের আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে সব প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তিনি সেগুলো বাস্তবায়ন করে চলেছেন। সেপ্টেম্বর মাস থেকেই লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পের সুবিধা মহিলাদের সরাসরি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পৌঁছে যাবে। এছাড়াও তিনি বলেন , সাগরদিঘি ব্লকের প্রতিটি দুয়ারে সরকার শিবিরে সাধারণ মানুষজন যাতে আবেদন পত্র পূরণের জন্য হন্যে হয়ে ছুটে না বেড়ায় তার জন্য আমাদের ছেলেরা অর্থাৎ সাগরদিঘি তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সদস্যরা বিনামূল্যে ফর্ম পূরণের পরিষেবা দিচ্ছেন।