প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় প্রায় ২ হাজার কোটি টাকার দুর্নীতির অভিযোগ তুলল সিবিআই

প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় প্রায় ২ হাজার কোটি টাকার দুর্নীতির অভিযোগ তুলল সিবিআই

নতুন গতি ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার (পিএমএওয়াই) আড়ালে প্রায় ২ হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি করা হয়েছে। বুধবার এমনই অভিযোগ তুলে মামলা দায়ের করল সিবিআই (CBI)। সিবিআইয়ের অভিযোগ, দিওয়ান হাউসিং ফিনান্স লিমিটেডের (DHFL) প্রোমোটার কপিল এবং ধীরজ ওয়াধওয়ান ভাইয়েরা এই দুর্নীতি করেছে। যাঁরা ইতিমধ্যেই অন্য একটি দুর্নীতি মামলায় জেলে রয়েছেন।প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় (Pradhan Mantri Awas Yojana) নিম্ন ও মধ্য আয়ের মানুষদের জন্য গৃহঋণ দেওয়া হয়। সেই ঋণে সুদের পরিমাণ ভরতুকি দেয় সরকার। সে ক্ষেত্রে ডিএইচএফএলের মতো সংস্থার মাধ্যমে সেই ভরতুকির টাকা পিএমএওয়াই-এর গ্রাহকরা পান। সিবিআইয়ের অভিযোগ, কয়েক হাজার ভুয়ো অ্যাকাউন্ট তৈরি করে সেই ভরতুকির টাকা আত্মসাৎ কার হয়েছে।

২০১৫ সালে প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজন চালু হয়। সিবিআইয়ের অভিযোগ, ২০১৮-র জুনে ডিএইচএফএল (DHFL) তার বিনিয়োগকারী সংস্থাগুলিকে ৮৮ হাজার ৬৫১টি ঋণের আবেদন মঞ্জুর করতে বলে। যেগুলির মাধ্যমে ১৪ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেওয়া হয়। আর সেই ঋণের সুদে ভরতুকি বাবাদ সরকারের কাছ থেকে ১ হাজার ৮৮০ কোটি টাকা দাবি করা হয়। যার মধ্যে ৫৩৯ কোটি ৪০ লাখ টাকা মেটানো হয় এবং ১ হাজারর ৩৪৭ কোটি ৮০ লাখ টাকা বকেয়া রয়েছে। ফরেন্সিক অডিট তদন্তে নেমে দেখে কপিল এবং ধীরজ প্রায় ২ লক্ষ ৬০ হাজার গৃহ ঋণের অ্যাকাউন্ট খোলে। যার মধ্যে প্রচুর অ্যাকাউন্ট প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় ঋণ নেয়। যেগুলি আবার ডিএইচএফএলের বান্দ্রার শাখার নামে খোলা হয়। বাস্তবে যার কোনও অস্তিত্বই নেই। গত বছর জুনেই সিবিআই দুই ওয়াধওয়ান ভাই এবং ইয়েস ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা রানা কাপুরের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয়। যেখানে অভিযোগ করা হয় দুই ভাইয়ের কাছ থেকে ঘুষ পেয়েছেন রানা কাপুর। তদন্তে দাবি করা হয়, ইয়েস ব্যাংক সাধারণ মানুষের ৩ হাজার ৭০০ কোটি টাকা ডিএইচএফএলে বিনিয়োগ করে। প্রতিদানে ডিএইচএফএল ৬০০ কোটি টাকা রানা কাপুরকে ঘুষ দেয়। তবে সেই ঘুষ আবার সরাসরি রানা নেননি। রানার স্ত্রী এবং মেয়ের একটি সংস্থায় সেই টাকা বিনিয়োগ করে ডিএইচএফএল। এই অভিযোগে গত এপ্রিলেই গ্রেফতার হন ওয়াধওয়ান ভাইরা। এবং তার আগে মার্চে গ্রেপ্তার হন রানা কাপুর। সেই দুর্নীতির পর এবার প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ সামনে আনল সিবিআই।