বেহাল রাজ্য সড়ক সারানোর দাবিতে রাস্তায় নেমে লিফলেট বিলি করছেন খোদ তৃণমূল পঞ্চায়েত প্রধান!

নিজস্ব সংবাদদাতা: রাস্তার উপর থেকে উধাও পিচের প্রলেপ। বেরিয়ে এসেছে ইঁটের স্তর। এদিক-সেদিক এবড়োখেবড়ো ইঁটের রাস্তা। রাস্তার উপর কোথাও কোথাও বড় বড় গর্ত তৈরি হয়েছে। সামান্য বৃষ্টিতেই যেখানে জল জমে যায়। কোনও প্রত্যন্ত এলাকায় রাস্তা নয়। এমন ছবি পূর্ব বর্ধমানের (Purba Bardhaman) কেতুগ্রামের (Ketugram) সাত নম্বর রাজ্য সড়ক বা SH7-এর। যা স্থানীয়ভাবে পরিচিত বাদশাহি রোড নামে। যদিও রাস্তায় চেহারায় কোনও ‘শাহি’ ছাপ নেই। এমন রাস্তা নিয়েই এবার তরজা বেঁধেছে কেতুগ্রামে। বারবার পিডব্লিউডি কর্তৃপক্ষকে জানিয়েও কোনও কাজ হয়নি বলে অভিযোগ স্থানীয় তৃণমূল নেতার। এখন বেহাল রাজ্য সড়ক সারানোর দাবিতে রাস্তায় নেমে লিফলেট বিলি করছেন খোদ তৃণমূল পঞ্চায়েত প্রধান।

বেহাল রাস্তা:
পূর্ব বর্ধমানের কেতুগ্রামের সাত নম্বর রাজ্য সড়ক (SH 7)। পরিচিত বাদশাহি রোড নামে। তবে তার চেহারার কারণে প্রবল সমস্যায় স্থানীয় বাসিন্দারা। স্থানীয়দের অভিযোগ, কেতুগ্রামের ফুটিসাঁকো থেকে আনখা পর্যন্ত এই ৬ কিলোমিটার রাস্তা খানাখন্দে ভরা। মুর্শিদাবাদের কুলি পর্যন্ত ২৮ কিলোমিটার রাস্তাও বেহাল, যার দেখভালের দায়িত্বে রয়েছে রাজ্য সরকারের পিডব্লিউডি (PWD)। বৃষ্টি হলেই জল-কাদায় ভরে যায় রাস্তা। যার জেরে প্রায়ই দুর্ঘটনার মুখে পড়তে হয় যাত্রীদের।
রাস্তা সারানোর দাবি:
রাস্তা সারানোর দাবি নিয়ে এবার রাস্তায় নেমেছেন তৃণমূল (TMC) পরিচালিত বেড়ুগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান মহম্মদ সহিদুল্লা। তাঁর সঙ্গে রয়েছেন স্থানীয় বেশ কিছু তৃণমূল কর্মী। রবিবার তৃণমূল কর্মীদের নিয়ে রাস্তায় লিফলেট বিলি করেছেন তিনি।

কী অভিযোগ:
তৃণমূল নেতা এবং বেড়ুগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান মহম্মদ সহিদুল্লার অভিযোগ, বারবার পিডব্লিউডি (PWD) কর্তৃপক্ষকে জানালেও রাস্তা সারানো হয়নি। তিনি বলেন, ‘অভিযোগ করলেই ইটের কুচি দিয়ে কাজ করে যায়, আমি পিডব্লিউডি ও প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করছি।’

শুরু তরজা:
বেহাল রাজ্য সড়ক নিয়ে খোদ শাসক দলের পঞ্চায়েত প্রধান সরব হওয়ায় তুঙ্গে উঠেছে রাজনৈতিক তরজা। পূর্ব বর্ধমানের জেলা তৃণমূল সভাপতি রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘দলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে যদি উনি প্রচার করে থাকেন, সেটা অন্যায় করছেন।’ পাল্টা পূর্ব বর্ধমানের বিজেপির জেলা সভাপতি গোপাল চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘সরকার উন্নয়ন করতে পারে না আগেই বলেছি, এবার স্পষ্ট হল। প্রধানকে বলব বিজেপিতে যোগ দিন তবে উন্নয়ন হবে।’

প্রশাসনের দাবি:
পিডব্লিউডি কর্তৃপক্ষের দাবি, ২৮ কিমি রাস্তা সারানোর জন্য বেশ কয়েক বার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। প্রশাসনের কাছ থেকে অনুমোদন না পাওয়ায় কাজ করা যাচ্ছে না। তবে কোথাও অসুবিধা হলে তা মেরামত করা হয়। পুজোর আগে ওই বেহাল রাস্তা কবে মেরামত হবে, তার জন্য অপেক্ষায় স্থানীয় বাসিন্দারা।