দিল্লি আদালত থেকে জামিন পেলেন উমর খালিদ

নতুন গতি নিউজ ডেস্ক : দিল্লি হিংসা মামলায় দিল্লি আদালত থেকে জামিন পেলেন উমর খালিদ। জামিনের শর্ত হিসেবে তাঁকে ২০ হাজার টাকার পার্সোনাল বন্ড দিতে হয়েছে। আদালত জানিয়েছে, কোনো অবস্থাতেই যেন এই মামলার সাক্ষীদের প্রভাবিত করার চেষ্টা না করেন উমর খালিদ। তাঁর মুক্তিতে স্থানীয় অঞ্চলে শান্তি যাতে বিঘ্নিত না হয় সেদিকেও বিশেষ নজর দিতে হবে।

উমর খালিদের জামিনের শর্ত হিসেবে তাঁকে তাঁর ফোনে আরোগ্য সেতু অ্যাপ ইন্সটল করার নির্দেশও দিয়েছেন বিচারপতি বিনোদ যাদব। জামিনে মুক্তিপ্রাপ্ত উমর খালিদকে শুনানির জন্য যে যে তারিখে তলব করা হবে তখনই তাঁকে হাজিরা দিতে হবে। খাজুরি খাস পুলিশ থানার এস এইচ ও-র কাছে তাঁর মোবাইল নম্বর দিয়ে রাখারও নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

দিল্লি হিংসার ঘটনায় গত ২০২০ সালের ৬ মার্চ প্রথম উমর খালিদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হয়। তাতে বলা হয়, উস্কানিমূলক ভাষণ দেওয়ার পাশাপাশি, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ভারতে থাকাকালীন রাস্তায় নেমে এসে বিক্ষোভ দেখাতে দিল্লিবাসীকে ইন্ধন জোগান উমরই, যাতে সংখ্যালঘুদের কোণঠাসা করা হচ্ছে, এমন বার্তা আন্তর্জাতিক মহলে পৌঁছে দেওয়া যায়।যদিও দিল্লি পুলিশের আনা অভিযোগ সেই সময় অস্বীকার করেন উমর। ইচ্ছাকৃত ভাবে তাঁকে ফাসানো হচ্ছে বলে দাবি করেন তিনি।

গত ৪ সেপ্টেম্বর সংবাদমাধ্যমে উমর অভিযোগ করেন, দেশে এই মুহূর্তে দু’ধরনের আইন চলছে। শাসক দলের সমর্থকদের জন্য একটি, অন্যটি সাধারণ মানুষের জন্য, যাঁরা সরকারের সমালোচনা করার সাহস দেখান।বিরোধীদের আপত্তি উড়িয়ে গত বছর ডিসেম্বরে সংসদে সংশোধিত্ব নাগরিকত্ব আইন পাশ করিয়ে নেয় মোদী সরকার। কেন্দ্রীয় সরকারের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সেই সময় গর্জে ওঠে রাজধানী দিল্লির উত্তর-পূর্ব অংশ। শাহিনবাগ-সহ একাধিক এলাকায় সিএএ বিরোধী আন্দোলন মাথা চাড়া দেয়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সফর চলাকালীন, সিএএ বিরোধী ও সমর্থকদের সংঘর্ষে পরিস্থিতি তেতে ওঠে। তাতে ৫৩ জন প্রাণ হারান। আহত হন ২০০-র বেশি মানুষ।