দাম্পত্য কলহে বিয়ের পনের দিনের মাথায় অধ্যাপকের অস্বাভাবিক মৃত্যু, চাঞ্চল্য কেশপুরে

নতুন গতি ওয়েব ডেস্কঃ বিয়ের মাত্র ১৫ দিনের মাথায় অধ্যাপকের অস্বাভাবিক মৃত্যুতে চাঞ্চল্য ছড়াল পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশপুরের আঁধিচক গ্রামে। ওই গ্রামের বাসিন্দা নাড়াজোল রাজ কলেজের শিক্ষা বিজ্ঞানের অধ্যাপক প্রতীম মাইতি ম্যাট্রিমনিয়াল সাইটের মাধ্যমে দেখাশোনা করে জানুয়ারি মাসেই বিয়ে করেছিলেন । স্ত্রী ব্রততী হলেন পেশায় ইঞ্জিনিয়ার।

মৃত অধ্যাপক প্রীতম মাইতি

সূত্রের খবর, সোমবার মাঝরাতে নিজের বাড়িতে আচমকাই অসুস্থ হয়ে পড়েন ওই অধ্যাপক। প্রায় সংজ্ঞাহীন অবস্থায় তাঁকে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও শেষরক্ষা হয়নি। হাসপাতালে প্রতীমকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা।

বিবাহের দিন (ফাইল চিত্র)

মৃতের আত্মীয়দের দাবি, ব্রততী অত্যন্ত আধুনিকা। গ্রাম্য পরিবেশের সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারতেন না। স্বামী স্ত্রীর মধ্যে দাম্পত্য কলহ লেগেই থাকতো এই শহুরে চালচলন নিয়ে । সেই থেকেই স্বামী-স্ত্রীর বিবাদের সূত্রপাত। সেই বিবাদের কারণে প্রতীমকে খুন করেছে তাঁর স্ত্রীই বলে পরিবারের দাবী। যদিও ব্রততীর পাল্টা অভিযোগ, স্বামীর সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক একেবারেই স্বাভাবিক ছিল। বরং শ্বশুরবাড়ির লোকেরা দুর্ব্যবহার করতেন।

দেহ ময়নাতদন্তে পাঠিয়ে তদন্তে নেমেছে পুলিস। ময়নাতদন্তের পর আসল ঘটনা কি তা জানার জন্য উদগ্রীব এলাকাবাসী। ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি তুলেছেন অধ্যাপকের বাড়ির ও তার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা।তবে ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে । সেই সঙ্গে মৃত অধ্যাপকের বাড়িতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে