আজ পবিত্র মুহাররম

 

নতুন গতির বিশেষ প্রতিবেদন: আজ পবিত্র ইয়াওমে আশুরা।
করোনা অতিমারির কারণে সুপ্রিম কোর্ট এই বছর শোভাযাত্রা, তাজিয়া বের করার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। মুসলিম ধর্মীয় নেতারাও এই বছর লাঠি খেলা, তাজিয়া নির্মাণ, অস্ত্র মিছিল বের করা থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

আশুরা শব্দের অর্থ ‘দশ’ । ইসলামিক ক্যালেন্ডারের হিজরী বছরের প্রথম মাস মুহাররম। ইরাকের কারবালা প্রান্তরে ৬৮০ খ্রিস্টাব্দে ঘটেছিল এক মহা বিয়োগান্তক ঘটনা। মুহাররম মাসের ১০ তারিখে আখেরী নবী হজরত মুহাম্মদ (সা:) এর অতিপ্রিয় দৌহিত্র হজরত হুসাইন (রা:) কে নির্মম ভাবে হত্যা করে ছিলো ইয়াজিদ বাহিনী। তিনি কোনোভাবেই অন্যায় ক্ষমতা লোভী ইয়াজিদের সঙ্গে আপস করেন নাই। আশুরার দিন ও পরের বা আগের দিন অনেক রোজা পালন করেন। দরিদ্র অসহায় মানুষকে খাবার দাবার দেন।

পবিত্র আশুরা মানব ইতিহাসের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ও ঘটনাবহুল অধ্যায়ের সাক্ষী। ‘শহীদে কারবালা’র ঘটনা মুসলিম উম্মাহকে এক বিয়োগান্তক ঘটনা স্মরণ করিয়ে দেয়।

পবিত্র আশুরা আজ। কারবালার শোকাবহ ও হৃদয়বিদারক ঘটনার এই দিনটি ধর্মীয়ভাবে বিশ্বের মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের কাছে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। মুসলিম বিশ্বে ত্যাগ ও শোকের প্রতীক হিসেবে এ দিনটি বিশেষ পবিত্র দিবস।

মুসলিম উম্মাহর কাছে আশুরার ঐতিহাসিক গুরুত্ব অনেক। কারবালা প্রান্তরে (৬০ বা ৬১ হিজরির ১০ মুহাররম) মহানবী (সা.)-এর দৌহিত্র হোসাইন (রা.)-এর মর্মান্তিক শাহাদাত বরণ ‘আশুরা’কে আরো গুরুত্বপূর্ণ ও তাৎপর্যমণ্ডিত করেছে। ফলে কারবালা ও কারবালা সংক্রান্ত ইতিহাস জরুরি বিষয়ে পরিণত হয়েছে।

এই মর্মান্তিক ঘটনার সূত্রপাত যেখান থেকে শুরু হয়, তাহলো- বিশ বছর খলিফা হিসেবে রাষ্ট্র পরিচালনার পর হিজরির ৬০ সালে হজরত মুয়াবিয়া (রা.) ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুর পূর্বে বসরার শাসনকর্তা হযরত মুগিরার প্ররোচণায় মুয়াবিয়া তাঁর জেষ্ঠ্য পুত্র ইয়াজিদকে খলিফা হিসেবে মনোয়ন দিয়ে যান। এই নিয়োগ ইসলামের গণতান্ত্রিক নিয়মের পুরোপুরি বহির্ভূত ছিল। ইয়াজিদ ছিলেন নিষ্ঠুর প্রকৃতির, মদ্যপ, ধর্মে অবিশ্বাসী এক ব্যক্তি। যার কারণে তৎকালীন মুসলিম বিশ্বের অধিকাংশ মানুষ এটিকে ভালোভাবে মেনে নেয়নি।

পক্ষান্তরে মদিনা ও কুফার জনগণ ইমাম হোসাইন (রা.)কে খলিফা হিসেবে দেখতে চেয়েছে। এরই এক সময় কুফার লক্ষাধিক মানুষ ইমাম হোসাইন (রা.)কে পত্র প্রেরণ করেন। এই পত্রে তারা দাবি জানান, সুন্নাহ পুনর্জীবিত এবং ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করতে অবিলম্বে তার দায়িত্ব গ্রহণ করা প্রয়োজন।

যদিও এ সময় হযরত ইমাম হোসাইন (রা.) ইয়াজিদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে ইরাক থেকে চলে গিয়ে মক্কা-মদিনায় অবস্থান করছিলেন। মদিনায় অবস্থানরত সাহাবিগণ এবং ইমাম হোসাইনের আপনজনরা এ সময় ইমামকে কুফায় যেতে বারণ করেন। কারণ তারা আশঙ্কা করছিলেন, ইয়াজিদের পক্ষ থেকে বাধা আসলে ইরাকবাসীরা ইমাম হোসাইনের পক্ষ ত্যাগ করবে।

কুফাবাসীর ডাকে সাড়া দিয়ে হযরত হোসাইন (রা.) তার চাচাতো ভাই মুসলিম ইবনে আকিলকে ইরাকের সার্বিক অবস্থা পর্যবেক্ষণের জন্য প্রেরণ করেন। আর বলে দেন, যদি সে পরিস্থিতি অনুকূল দেখে এবং ইরাকবাসীদের অন্তরকে সুদৃঢ় ও সুসংহত পায় তাহলে যেন তাঁর কাছে দূত প্রেরণ করে।

মুসলিম ইবনে আকিল কুফায় আগমন করার সঙ্গে সঙ্গে ১৮ হাজার কুফাবাসী তার কাছে এসে ইমাম হোসাইনের পক্ষে বাইয়াত গ্রহণ করে এবং তারা শপথ করে বলে, অবশ্যই আমরা জানমাল দিয়ে ইমাম হোসাইনকে সাহায্য করব।

তখন মুসলিম ইবনে আকিল ইমাম হোসাইন (রা.)-এর কাছে পত্র পাঠিয়ে জানালেন যে, কুফার পরিস্থিতি সন্তোষজনক, তিনি যেন আগমন করেন। এই সংবাদের ভিত্তিতে ইমাম হোসাইন (রা.) তার পরিবারের ১৯ জন সদস্যসহ প্রায় ৫০ জন সঙ্গী নিয়ে কুফার উদ্দেশে রওনা হন।

এই খবরে ইয়াজিদ উত্তেজিত হয়ে কুফার গভর্ণর নোমান ইবনে বশিরকে (রা.) পদচ্যুত করে ওবায়দুল্লাহ ইবনে জিয়াদকে কুফার দায়িত্ব প্রদান করেন। ইমাম হোসাইন (রা.) যেন কোনোভাবেই কুফায় প্রবেশ করতে না পারে এই মর্মে নির্দেশও দেন ইয়াজিদ।

ওবায়দুল্লাহ বিন জিয়াদ কুফায় পৌঁছে সেখানকার জনগণকে কঠোর হস্তে দমন করে এবং মুসলিম বিন আকিলকে হত্যা করে। এরপর ইমাম হোসাইনকে (রা.) প্রতিরোধ করতে চার হাজার সৈন্যের একটি বাহিনী প্রেরণ করে।

ইবনে জিয়াদের বাহিনী কারবালার প্রান্তরে অবরোধ করলে হোসাইন (রা.) বললেন, আমি তো যুদ্ধ করতে আসিনি। তোমরা আমাকে ডেকেছ বলে আমি এসেছি। এখন তোমরা কুফাবাসীরাই তোমাদের বাইয়াত পরিত্যাগ করছ। তাহলে আমাদেরকে যেতে দাও, আমরা মদিনায় ফিরে যাই অথবা সীমান্তে কাফেরদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করি। অন্যথায় ইয়াজিদের কাছে গিয়ে তার সঙ্গে বোঝাপড়া করি। কিন্তু হযরত হোসাইন (রা.)কে নিঃশর্ত আত্মসমর্পণ করতে আদেশ দেয় ইবনে জিয়াদ। ঘৃণা ভরে এ আদেশ প্রত্যাখ্যান করেন ইমাম হোসাইন (রা.)।

মহররমের ১০ তারিখ সকাল থেকে ইবনে জিয়াদের নেতৃত্বে প্রায় ৪ হাজার ইয়াজিদ বাহিনী হোসাইন (রা.)-এর ওপর আক্রমণ চালাতে থাকে এবং ফোরাত নদী থেকে পানি সংগ্রহের সব পথ বন্ধ করে দেয়। হজরত হোসাইন (রা.)-এর শিবিরে শুরু হয় পানির জন্য হাহাকার। হোসাইন (রা.) সাথীদের নিয়ে বীরত্বের সঙ্গে যুদ্ধ করতে থাকেন। এই যুদ্ধে একমাত্র ছেলে হজরত জায়নুল আবেদিন (রহ.) ছাড়া পরিবারের শিশু, কিশোর ও মহিলাসহ সবাই একে একে শাহাদাতের বরণ করেন।

মৃত্যুর আগ মুহূর্ত পর্যন্ত ইমাম হোসাইন একাই লড়াই চালিয়ে যান। শেষ পর্যন্ত অত্যন্ত নির্মম ও নির্দয়ভাবে ইমাম হোসাইনকে শহীদ করা হয়। শিমার নামক এক পাপিষ্ঠ তার মস্তক দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে।

শাহাদাতের পর ইমাম হোসাইন (রা.)-এর ছিন্ন মস্তক বর্শা ফলকে বিদ্ধ করে এবং তাঁর পরিবারের জীবিত সদস্যদেরকে দামেস্কে ইয়াজিদের কাছে প্রেরণ করা হয়। ইমামের খণ্ডিত মস্তক দেখে ইয়াজিদ ভীত ও শঙ্কিত হয়ে পরে।

ইয়াজিদের এই জয়লাভ বেশি দিন টিকে থাকেনি। মাত্র চার বছরের মধ্যে ইয়াজিদ মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করে। এর কয়েকদিনের মধ্যে মৃত্যু হয় ইয়াজিদ পুত্রের। কারবালার এই মর্মান্তিক হত্যায় জড়িত প্রতিটি ব্যক্তি কয়েক বছরের মধ্যেই মুখতার সাকাফির বাহিনীর হাতে নির্মমভাবে নিহত হয়। এরপর ইয়াজিদের বংশের কেউ শাসন ক্ষমতা লাভ করেনি।

ইমাম হোসাইন (রা.) আজও বেঁচে আছেন সত্য ও ন্যায়ের প্রতীক হিসেবে। তার ত্যাগ যুগের পর যুগ মুসলিম বিশ্ব শ্রদ্ধা ও ভক্তির সঙ্গে স্মরণ করবে।