কেন্দ্রের করোনা নজরদারি সম্পর্কিত “আরোগ্য সেতু” অ্যাপ্সে গোপনীয়তা ফাঁসের অভিযোগ হ্যাকারের

বিগত কয়েক মাস ধরে করলাম ভাইরাসের আতঙ্কে দিশেহারা ভারতসহ সারা বিশ্ব। এরই প্রেক্ষিতেকেন্দ্র সরকার তথা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আরোগ্য সেতু নামে এক অ্যাপস লঞ্চ করেন করোনা সংক্রমণের উপর নজরদারি চালানোর জন্য। কিন্তু এই অ্যাপসের মাধ্যমে নাগরিকদের ব্যক্তিগত এবং গোপনীয় গতিবিধির উপর নজরদারি চালানো হচ্ছে বলে বিরোধী শিবির থেকে অভিযোগ উঠেছিল আগেই। এ বারও আরোগ্য সেতু অ্যাপ নিয়ে প্রশ্ন তুললেন এক হ্যাকার। তাঁর অভিযোগ, ভারতের ৯ কোটি জনগণের ব্যক্তিগত গোপনীয়তার নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা।

উল্লেখ্য,করোনা ভাইরাস সংক্রামিত নজরদারি চালাতে সমস্ত সরকারি এবং বেসরকারি কর্মচারীদের তাদের মোবাইলে এই অ্যাপস ডাউনলোড করা বাধ্যতামূলক করেছে কেন্দ্র সরকার।এমনকি যারা বিদেশ থেকে দেশে ফিরছে তাদের সর্বপ্রথম এই অ্যাপস ডাউনলোড করতে হবে বলে জানিয়েছেন।

আরোগ্য সেতু অ্যাপসটি
বৈদ্যুতিন ও তথ্য-প্রযুক্তির তত্ত্বাবধানে ন্যাশনাল ইনফরমেটিকস সেন্টার তৈরি করেছে। বুধবার কেন্দ্রীয় সরকারের একটি বিবৃতি প্রকাশ করে বলা হয়,  ‘‘অ্যাপ ব্যবহারকারীদের লোকেশন দেখা যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন এলিয়ট। তা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন ফ্রান্স নিবাসী রবার্ট ব্যাপটাইজ নামের ওই হ্যাকার। এলিয়ট আলডারসন ছদ্মনামে টুইটারে একটি হ্যান্ডল রয়েছে তাঁর। মঙ্গলবার রাতে সেখানে আরোগ্য সেতু অ্যাপ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তিনি। আরোগ্য সেতু অ্যাপের নির্মাতাদের উদ্দেশে এলিয়ট লেখেন, ‘‘আরোগ্য সেতু অ্যাপে নিরাপত্তা সংক্রান্ত বেশ কিছু ত্রুটি চোখে পড়েছে। ৯ কোটি ভারতীয়র গোপনীয়তা নষ্ট হওয়ার মুখে।’’

এর আগে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী অভিযোগ করেছিলেন যে আরোগ্য সেতু অ্যাপসটিতে জনগণের গোপনীয়তা অসুরক্ষিত বা চুরি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এলিয়েট মন্তব্য করেন রাহুল গান্ধীর এই আশংকা ঠিক ছিল। এবং এলিয়েট আরো জানান যতক্ষণ না এই অ্যাপটি ত্রুটি দূর হচ্ছে তো তখন তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে যাবেন এর সমস্যা গুলি সম্পর্কে। তিনি আরো জানান কেন্দ্র সরকার তার এই অভিযোগের কোন সাফাই দিতে রাজি হয়নি।