দুর্ঘটনা কমাতে গাড়ির ছাদে বেআইনি সিঁড়ি খুলতে নয়া উদ্যোগ বীরভূম প্রশাসনের।

নিশির কুমার হাজরা। বীরভূম। বেসরকারি বাসের ভিতরে ভাড়া আদায় কারী যাত্রীদের যে টিকিট দেন। সেই ভাড়ার পয়সা বাস মালিক সমিতি হিসেব করে মালিকপক্ষকে সমানভাবে ভাগ করে দেন। কিন্তু যাদেরকে টিকিট না দিয়ে ভাড়া আদায় করেন। সেই পয়সা মালিকপক্ষ পাননা । ফলে বাস কন্ডাক্টর সেই পয়সা প্রতিদিন আত্মসাৎ করেন।

কম ভাড়ায় হাওয়া খেতে খেতে যে সব যাত্রী বাসের ছাদে ওঠেন। তাদেরকে কন্টাকটার টিকিট দেন না। অথচ ভাড়া নিয়ে আত্মসাৎ করেন এমন অভিযোগ বাস মালিক পক্ষের দীর্ঘদিনের। কিন্তু যখন দুর্ঘটনায় বাসের ছাদ থেকে মানুষ পড়ে গিয়ে মৃত্যু হয়। তখন বাস মালিক কে তার পরিবারকে এককালীন মোটা অর্থ দিতে বাধ্য হতে হয়। এমনকি সরকারপক্ষ ও ব্লক আধিকারিকের মারফত সহায়তা ভাতা দিতে বাধ্য থাকেন।

সেই সব দিক প্রশাসন বিবেচনা করেই বেআইনি ছাদে সিঁড়ি খুলতে আজ তৎপর হলেন। সর্ব সিদ্ধান্ত সম্মত হয়েই বেসরকারি বাসের ছাদে যাত্রী পরিবহন রুখতে বীরভূম পুলিশ প্রশাসন বহু আগে একবার উদ্যোগ নিলেও মানুষের সচেতনতার অভাবে তা ফলপ্রসূ হয়নি।

তাই আজ বীরভূম প্রশাসন কড়া হাতে গ্যাস কাটার এর মাধ্যমে বীরভূমের বিভিন্ন প্রান্তে ছাদে সিঁড়ি কেটে ফেলছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। গত শুক্রবার থেকে বীরভূম জেলা পুলিশ এবং মটর ভেহিকেল এর যৌথ উদ্যোগে বীরভূমের বিভিন্ন প্রান্তে বাসের ছাদে সিঁড়ি খোলার অভিযান চালানো হচ্ছে।

গতকাল মল্লারপুর, রামপুরহাট আজ দুবরাজপুর এবং সিউড়িতে অভিযান চলতে দেখা গেল। অবুঝ মানুষ খুশি না হলেও সচেতন মানুষ পুলিশের এই উদ্যোগে যথেষ্ট খুশি। বাস মালিক পক্ষ ও এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন বলে সূত্রের খবর।